April 23, 2024
নায়াগ্রা জলপ্রপাত।ছবি: সংগৃহীত
নায়াগ্রা জলপ্রপাত।ছবি: সংগৃহীত

সূর্যগ্রহণের দিন নায়াগ্রায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা

৮ এপ্রিল পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ হবে। এই দৃশ্য যেসব স্থান থেকে সবচেয়ে ভালো দেখা যাবে, সেগুলোর একটি নায়াগ্রা জলপ্রপাত। ন্যাশনাল জিওগ্রাফি এমনটাই জানিয়েছে।

তবে এ নিয়ে মধুর সমস্যায় পড়েছে কানাডার কর্তৃপক্ষ। ওই দিন লাখ লাখ দর্শনার্থীকে স্বাগত জানাতে নায়াগ্রা জলপ্রপাতের কানাডা অংশের আশপাশের শহরে জরুরি অবস্থা জারি করেছে কর্তৃপক্ষ।

১৯৭৯ সালের পর এই প্রথম কানাডার অন্টারিও প্রদেশে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। ন্যাশনাল জিওগ্রাফি জানিয়েছে, যেসব স্থান থেকে এই সূর্যগ্রহণ সবচেয়ে ভালো দেখা যাবে, নায়াগ্রা জলপ্রপাত সেগুলোর একটি।

নায়াগ্রা জলপ্রপাত কানাডার অন্টারিও প্রদেশের দক্ষিণ-পূর্বে ও আমেরিকার নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যের উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত। নায়াগ্রা নদীর প্রবাহিত পানি থেকে নায়াগ্রা জলপ্রপাতের সৃষ্টি হয়েছে।

নায়াগ্রা পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম জলপ্রপাত। এর হৃদয়ছোঁয়া নৈসর্গিক সৌন্দর্য দেখতে এমনিতেই প্রতিবছর পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কয়েক কোটি পর্যটক জড়ো হন।

৮ এপ্রিল সূর্যগ্রহণের দিন কয়েক মিনিটের জন্য সূর্যের রশ্মি পুরোপুরি আড়াল করে দেবে চাঁদ। আর সেই দৃশ্য অন্টারিও শহর থেকে ভালোভাবে দেখা যাবে। এই দৃশ্য দেখতে ওই দিন নায়াগ্রা জলপ্রপাতে বিপুলসংখ্যক দর্শনার্থী সমাগম হবে।

নায়াগ্রা ফলস মেয়র জিম ডিওডাটি মার্চের শুরুর দিকে বলেছেন, দিনটি ঘিরে এক দিনে সবচেয়ে বেশিসংখ্যক দর্শনার্থীর সমাগম হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

বিশেষ এই দিন ঘিরে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে আগে থেকেই জরুরি অবস্থা জারি করেছে নায়াগ্রা আঞ্চলিক পৌর কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবার এই ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। দিনটি ঘিরে অতিরিক্ত প্রস্তুতির পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে, যানজট নিয়ন্ত্রণ, বর্ধিত জরুরি পরিষেবার চাহিদা পূরণ এবং মুঠোফোন নেটওয়ার্কে চাপ সামলানো।

এই সূর্যগ্রহণ মেক্সিকোর প্রশান্ত মহাসাগরীয় উপকূলে পৌঁছাবে সকালের দিকে। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস থেকে মেইন পর্যন্ত তির্যকভাবে কেটে বিকেল নাগাদ কানাডার পূর্বাঞ্চলে পৌঁছাবে। এই মহাদেশের বাকি অংশে আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে।

Check Also

মধ্য আফ্রিকা প্রজাতন্ত্রে ভাগনারের এক যোদ্ধা।ফাইল ছবি: রয়টার্স

নতুন কমান্ডারের নেতৃত্বে আফ্রিকায় তৎপরতা বাড়াচ্ছে ভাগনার

ফিলিস্তিনের গাজায় চার মাসের বেশি সময় ধরে চলছে রক্তপাত। বিশ্ববাসীর বেশির ভাগেরই নজর এখন সেদিকে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *